রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • প্রচ্ছদ » বিনোদন » একের পর এক ফ্লপ হচ্ছে হিন্দি ছবি-নির্মাতা, অভিনয়শিল্পী থেকে প্রযোজকদের ঘুম হারাম



একের পর এক ফ্লপ হচ্ছে হিন্দি ছবি-নির্মাতা, অভিনয়শিল্পী থেকে প্রযোজকদের ঘুম হারাম


আলোকিত সময় :
17.09.2022

আলোকিত সময় ডেস্ক :

অশোক কুমার অভিনীত ‘কিসমত’ বলিউডের প্রথম ব্লকব্লাস্টার ছবি। ১৯৪৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ছবিটি প্রথম ভারতীয় সিনেমা, যা বক্স অফিসে কোটি রুপি আয় করেছিল। বোম্বে টকিজের প্রযোজনায় বাঙালি পরিচালক জ্ঞান মুখোপাধ্যায়ের এ ছবির পর ভারতীয় চলচ্চিত্র দুনিয়ায় বলিউডের জয়রথ দুর্বার গতিতে চলতে থাকে। বছরের পর বছর চলতে থাকা এ জয়রথ যেন থমকে গেছে বিগত দুই বছরে। একের পর এক ফ্লপ হচ্ছে হিন্দি ছবি-নির্মাতা, অভিনয়শিল্পী থেকে প্রযোজকদের ঘুম হারাম।
এমন বাজে সময় গত সাত দশকেও দেখেনি বলিউড। বড় বাজেট, ছবিতে একাধিক বড় তারকা, ব্যাপক প্রচারণা-কোনো টোটকাই কাজে লাগছে না। ব্যর্থতার মিছিলে নাম লিখিয়েছে ‘পৃথ্বীরাজ’, ‘লাল সিং চাড্ডা’, ‘এইট্টিথ্রি’, ‘রানওয়ে থার্টিফোর’, ‘জার্সি’, ‘বচ্চন পান্ডে’, ‘শামসেরা’, ‘ধাকড়’, ‘রক্ষাবন্ধন’, ‘বাধাই দো’, ‘ঝুন্ড’, ‘হিরোপান্তি ২’, ‘গেহরাইয়া’, ‘অ্যাটাক’সহ আরও অনেক ছবি।

অক্ষয় কুমার, অজয় দেবগন, শহীদ কাপুর, আমির খান, রণবীর কাপুর, রণবীর সিং, জন আব্রাহামের মতো বড় নামও ছবিগুলোকে ভরাডুবির হাত থেকে রক্ষা করতে পারেনি। একের পর এক ছবি বক্স অফিসে ব্যর্থ হওয়ায় রুটিরুজিতে টান পড়ছে অভিনেতা, নির্মাতা থেকে শুরু করে বহু চলচ্চিত্রকর্মীর।

বলিউডের এই সাম্প্রতিক ব্যর্থতার প্রথম বড় ধাক্কাটা দিয়েছে কোভিড। হলে গিয়ে ছবির দেখার অভ্যাসটাই যেন চলে গেছে দর্শকের। গত কয়েক দিন মুম্বাইয়ের বেশ কিছু এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, পুরোনো অনেক হল বন্ধ হয়ে গেছে। কোভিডের পর খোলেনি, এমন হলও বেশ কিছু আছে। সালমান খান পরিবারের জন্য সুপরিচিত জুহুর চন্দন সিনেমা হল (সালমান খানের যেকোনো ছবি মুক্তি পেলে বাবা সেলিম খান পরিবারের সবাইকে নিয়ে এখানে ছবি দেখেন) যেন গোডাউনে পরিণত হয়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে নামকরা সিনেমা হল ইরোজ। মারাঠা মন্দির, রিগাল সিনেমা হলে গিয়েও দেখা গেল দর্শকের উপস্থিতি একেবারেই কম। অথচ কয়েক বছর আগেও এসব সিনেমা হলের প্রতিটি শো থাকত হাউসফুল।

এর মধ্যে ‘গোদের উপর বিষফোড়া’র মতো এসেছে চলতি বছরের ‘বর্জন’ ঝড়। এ বিষয়ে মুম্বাইয়ের কয়েকজন গণমাধ্যমকর্মী ও চিত্রসমালোচকের সঙ্গে কথা হয় প্রথম আলোর। প্রায় সবারই মত, বলিউড সাম্রাজ্যকে ধ্বংস করতে একটি ‘বিশেষ বাহিনী’ সক্রিয় হয়েছে। চলচ্চিত্রকে নেওয়া হয়েছে রাজনীতি ও ধর্মীয় অবস্থানে। উদাহরণ হিসেবে তাঁরা বলেন, এখন ছবির মুক্তির আগেই বেশ কয়েকটি ধর্মীয় সংগঠন নানা বিষয় সামনে এনে বর্জনের ডাক দেয়। কেবল বর্জনের ডাক দিয়েই ক্ষান্ত হচ্ছে না, রাস্তায় নেমে আন্দোলনও করেছে তারা। নানা ইস্যুতে নির্মাতা ও অভিনেতাদের আদালত পর্যন্ত টেনে নিয়ে গেছে সংগঠনগুলো। তবে এর বাইরে আরও কারণ আছে।

অনেকের মতে, হিন্দি ছবিতে ভালো কনটেন্টের অভাব। কেউ আবার মনে করছেন, ওটিটির স্বাদ পাওয়ায় মানুষ প্রেক্ষাগৃহে যাচ্ছে না। দক্ষিণি ছবির ঝলমলানিতে বলিউডে অন্ধকার নেমে এসেছে বলেও অনেকের ধারণা। এ-ও অভিযোগ উঠেছে, এখন বলিউডের নিজস্ব কোনো গল্প নেই, নির্মাতারা রিমেকেই বেশি আগ্রহী। এ সময়ের প্রজন্ম কোরিয়ান সিরিজ ও সিনেমার প্রতি বেশি আকৃষ্ট হচ্ছে। তাই প্রেক্ষাগৃহে তরুণদের ভিড় কম।

বিনোদন সাংবাদিক ভাবনা মিশ্রা জানান, লকডাউনের পর ‘জার্সি’ ও ‘ঝুন্ড’ ছাড়া কোনো বলিউড ছবি তাঁর ভালো লাগেনি। তাঁর মতে, ‘এখন বলিউডে নিজস্ব গল্প বলতে কিছু নেই। আমরা বড্ড বেশি রিমেকে ঝুঁকেছি।’ মুম্বাইয়ের স্থানীয় বাসিন্দা পৃথা সান্যাল  বলেন, ‘আমি বলিউড ছবির পোকা। ছবি মুক্তি পাওয়ামাত্রই হলে যেতাম। কিন্তু এখন সেই আকর্ষণ কোথাও হারিয়ে গেছে। লকডাউনে মেয়ের সঙ্গে বসে কোরিয়ান ছবি দেখেছি। শুরুতে অতটা আগ্রহ পাইনি। কিন্তু ধীরে ধীরে আমিও কে-ড্রামাতে মজেছি। কোরিয়ান কনটেন্ট খুবই সমসাময়িক। আমাদের সংস্কৃতির না হলেও ছবিগুলোর সঙ্গে নিজেকে মেলাতে পারি।’

এ প্রসঙ্গে কথা বলেছেন অক্ষয় কুমারও। ব্যর্থতার দায় মাথা পেতে নিয়ে তিনি বলেন, ‘ছবি চলছে না তার দোষ আমার, আমাদের। পরিবর্তন আনতে হবে। জানতে হবে দর্শক কী চান। তাঁদের রুচি অনুযায়ী ছবি বানাতে হবে। এ ব্যাপারে অন্য কাউকে দোষারোপ করতে চাই না।’ অভিনেতা ও নির্মাতা রাকেশ রোশন মনে করেন, এখনকার চিত্রনির্মাতারা নিজেদের ও নিজেদের বন্ধুবান্ধবের কথা মাথায় রেখে ছবি করছেন। তাঁরা সাধারণ মানুষের সঙ্গে যুক্ত হতে পারছেন না। কারিনা কাপুর খানও জোর দিচ্ছেন গল্পের ওপর, কোভিডের সময় থেকে ওটিটিতে দর্শক ভালো ভালো কনটেন্ট দেখতে পাচ্ছেন। তাই গল্প ভালো হলেই কেবল তাঁরা থিয়েটারে যাবেন।

চলচ্চিত্র বাজারে দক্ষিণি নায়ক-নায়িকারাও বলিউড নায়ক-নায়িকাদের থেকে এগিয়ে গেছেন গত কয়েক বছরে। যেমন দ্য ওরম্যাক্স স্টার অডিয়েন্স পুলের জরিপ অনুযায়ী, এ বছর সেরা ভারতীয় নায়িকার তালিকায় মাত্র তিনজন বলিউডের। আলিয়া ভাট আছেন ২-এ, দীপিকা পাড়ুকোন ৫-এ ও ক্যাটরিনা কাইফ আছেন ৮ নম্বরে। দীপিকার মতো অভিনেত্রীকে পেছনে ফেলেছেন কাজল আগরওয়াল; যিনি আছেন ৪-এ। পূজা হেগড়ে ১০-এ। কাজল ও পূজা কাজ করেছেন হিন্দি ছবিতেও। তবে দক্ষিণি ছবির জোরেই তাঁরা এই স্থান অর্জন করেছেন। তেলেগু অভিনেত্রী সামান্থা রুথ প্রভু এই দৌড়ে আলিয়াকে পেছনে ফেলে শীর্ষে আছেন। তবে নায়কদের অবস্থা আরও উদ্বেগজনক।

তালিকায় বলিউড থেকে একমাত্র ঠাঁই পেয়েছেন অক্ষয় কুমার। তা-ও তাঁর স্থান ৫-এ। বাকি স্থানগুলো দক্ষিণি নায়কদের দখলে। ‘বয়েজ ক্লাব’-এর শীর্ষে আছেন বিজয়, ঠিক তাঁর পেছনে আছেন জুনিয়র এনটিআর, প্রভাস ও আল্লু অর্জুন।

মন্দার বাজারে কীভাবে ঘুরে দাঁড়াবে বলিউড? আদৌ কি পারবে? ভারতের স্বনামধন্য পরিবেশক পিভিআরের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সঞ্জীব কুমার বিজলি মনে করেন, বলিউডের সাময়িক দুঃসময় চলছে। একটা হিট ছবি ইন্ডাস্ট্রির অবস্থা বদলে দেবে।
গত সপ্তাহে মুক্তি পাওয়া ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ তেমনই আশা দেখাচ্ছে। মুক্তির তৃতীয় দিনের মাথায় এ ছবিরে ভান্ডারে যোগ হয়েছে ১০০ কোটি রুপি! নিকট সময়ে তো নয়ই, বলিউডের খুব কম ছবি আছে, যা আয়ের দিক থেকে এত দ্রুত সাফল্য পেয়েছে। বলিউডের মন্দার বাজারে এ ঘটনা রীতিমতো দৃষ্টান্ত বলে মনে করছেন সমালোচকেরা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি