সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩



শ্রীমঙ্গলে গ্রাহক সেবা নিয়ে ‘টি ভ্যালী’র ‘মিট দ্যা প্রেস’ অনুষ্ঠিত


আলোকিত সময় :
03.12.2022

সুভাষ দাশ তপন, শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি :

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে বেড়াতে আসা পর্যটকসহ সকল শ্রেনীর অথিতিদের সেবা প্রদান নিয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে সদ্য প্রতিষ্ঠিত হওয়া ‘টি ভ্যালী রেস্টুরেন্ট এন্ড বাজার’র আয়োজনে ‘মিট দ্যা প্রেস’ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় রেস্টুরেন্টের ২য় তলায় শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী বুলেট এর সভাপতিত্বে ‘মিট দ্যা প্রেস’ অনুষ্ঠিত হয়।
প্রতিষ্টানটির উদ্যোক্তা শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক এম এ রকিব গ্রাহক সেবা নিয়ে তার বক্তব্য প্রদান করেন। এসময় প্রতিষ্ঠানের দুই পার্টনার শ্রীমঙ্গল ব্যবসায়ী সমিতির কোষাধ্যক্ষ মো. আব্দুল বাছিত ও শ্রীমঙ্গল পৌরসভার কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র মীর এম এ সালাম ছাড়াও শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সহসভাপতি কাওছার ইকবাল, দিপংকর ভট্টাচার্য লিটন, সাধারন সম্পাদক ইমাম হোসেন সোহেল, উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক বিকুল চক্রবর্তী, অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি আনিসুল ইসলাম আশরাফি, শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সিনিয়র সাংবাদিক ইসমাইল মাহমুদসহ বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার অর্ধশতাধিক সংবাদকর্মী উপস্থিত ছিলেন।
প্রতিষ্টানের উদ্যোক্তা এম এ রকিব বলেন, আমি দীর্ঘদিন থেকে সাংবাদিকতার পাশাপাশি ট্যুরিজমের সাথে জড়িত। তাই পর্যটকের চাহিদা প্রতিনিয়তই আমাকে পীড়া দিত। সেই থেকে স্বপ্ন বুনতে থাকি নিরিবিলি, মনোরম পরিবেশে একটা পর্যটক বান্ধব প্রতিষ্টান করার।
তিনি বলেন, নিজের সীমিত সম্বলকে সঙ্গী করে শহরের কয়েকজন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ভাই-ব্রাদ্রারদের সাথে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করি। তাদের স্বতঃস্ফুর্ত সহযোগিতা এবং পরামর্শ নিয়ে কাজ শুরু করি চলতি বছরের শুরুর দিকে। দীর্ঘ কর্মযজ্ঞের পর আজ আমরা সুন্দর একটা পরিবেশ আপনাদের সামনে তুলে ধরতে পেড়েছি। এজন্য শুকরিয়া মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে।
রকিব বলেন, এটি বাস্তবায়ন করতে আমাকে অনেক কিছু সহ্য করতে হয়েছে। আমি বিশ্বাস করি ইংরেজিতে একটা কথা আছে “ইম্পসিবল ইজ নাথিং”। তবে স্বপ্ন দেখে শুরু করাটা ছিল বিশাল চিলেঞ্জিং। আমি আশা করি আপনাদের আন্তরিক সহযোগিতা পেলে এই প্রতিষ্টানটি দিয়ে দেশ এবং বিদেশের মানুষের কাছে শ্রীমঙ্গলের সুণাম অর্জন করতে পারবো।
তিনি বলেন, সারা দেশের মধ্যেই শ্রীমঙ্গলের আলাদা একটা পরিচিতি বহন করে। বিশেষ করে শ্রীমঙ্গলকে বলা হয়ে থাকে চায়ের রাজধানী খ্যাত দেশের অন্যতম পর্যটক নগরী। শ্রীমঙ্গলে রয়েছে প্রকৃতিক সৌন্দর্যের এক অপরুপ লীলাভূমি। এছাড়া এখানকার পরিবেশ, পরিস্থিতি সামাজিক ও ধর্মিয় মূল্যবোধ ছাড়াও দেশের অন্য যে কোন এলাকা  থেকে এখানকার সকল ধর্মের মানুষের মধ্যে রয়েছে সম্প্রীতির এক অন্যন্য দৃষ্টান্ত।
তিনি বলেন, বিজয়ের মাসজুড়ে “টি ভ্যালী রেস্টুরেন্ট” বিভিন্ন খাবারের বিশেষ অফার চালু করেছে। আশা করছি আমাদের “টি ভ্যালী বাজার’টিও স্বল্প সময়ের মধ্যেই চালু করতে পারবো এবং সেখানেও নিত্যপণ্যের বাজার-সদাই করলে স্পেশাল ডিসকাউন্ট থাকবে।
উদ্যোক্তা আরো বলেন, আমরা আপনাদের মাধ্যমে দেশবাসিকে জানিয়ে দিতে চাই যারা কর্পোরেট ট্যুরে চায়ের রাজ্য শ্রীমঙ্গল ভ্রমন করতে আসবেন তারা অগ্রিম বুকিং দিয়ে আসলে পেয়ে যাবে বিশেষ অফারটি। আর যারা বুকিং ছাড়া শ্রীমঙ্গলে বেড়াতে আসবেন তাদেরকে অনুরোধ করবো ‘টি ভ্যালী রেস্টুরেন্ট’র খাবারের স্বাদ গ্রহন করতে।
তিনি বলেন, গতানুগতিক ধারাবাহিকতাকে অতিক্রম করে কোলাহলমুক্ত, নিরিবিলি, মনোরম পরিবেশে স্বাস্থ্যসম্মত খাবার পরিবেশনে আমরা সর্বদা অঙ্গিকারবদ্ধ। আমাদের রয়েছে সুবিশাল এসি ফ্যামিলি/পার্টি হল, ওপেন ডাইনিং স্পেস, সাধারণ হলরুম, নামাজের জায়গা, সেলফিজোনসহ নিজস্ব গাড়ি পার্কিং এর সুবিধা।
রকিব বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রায় সময় বলে থাকেন এবং তরুনদের উৎসাহ দেন যে, চাকুরীর পিছনে না ঘুরে উদ্যোক্তা হবার জন্য। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সেই কথাগুলো আমাকে দারুনভাবে উদ্বুদ্ধ করেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী উদ্যোক্তাদের আরো বলে থাকেন যেকোন প্রোডাক্ট বা বিজনেস লগো ব্র্যান্ডিং করতে, আমরা চেষ্টা করেছি সুন্দর একটা লগো করতে, আমরা দুটি পাতা একটি কুড়ি সংযুক্ত করে লগো করেছি। আপনাদের সহযোগিতা নিয়ে সেটিকে ব্র্যান্ডিং করতে চাই।


এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি