শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪



তিস্তার পানি বেড়ে লালমনিরহাটের চার উপজেলার কিছু এলাকা প্লাবিত


আলোকিত সময় :
20.06.2023

নিজস্ব প্রতিবেদক :

উজান থেকে নেমে আসা ঢল আর বৃষ্টিতে তিস্তা নদীর পানি বেড়ে লালমনিরহাটের চার উপজেলার বেশ কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে অন্তত দুই হাজার পরিবার। গত রবিবার দিবাগত গভীর রাত থেকে এসব এলাকায় পানি ঢুকতে শুরু করে। একই কারণে পাশের জেলা কুড়িগ্রাম ও নীলফামারীতে বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলায় নিম্নাঞ্চলের ফসলের ক্ষেতে পানি ঢুকছে।

এদিকে সপ্তাহখানেকের মধ্যে জামালপুর, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, বগুড়া, লালমনিরহাট ও রংপুরের মতো অঞ্চলগুলো প্লাবিত হতে পারে। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া গতকাল সোমবার কালের কণ্ঠকে এ তথ্য জানান।

আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, ভারতের আসাম, সিকিম ও জলপাইগুড়ি অঞ্চলে প্রচুর বৃষ্টি হচ্ছে।

এই বৃষ্টি এসব অঞ্চলে আরো কিছুদিন থাকতে পারে। ফলে যমুনা-ব্রহ্মপুত্র ও তিস্তা অববাহিকার নদীসংলগ্ন এলাকাগুলোতে সপ্তাহখানেকের মধ্যে বন্যার আশঙ্কা আছে। বিশেষ করে ২৪ থেকে ২৫ জুনের দিকে কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জামালপুর, বগুড়া, লালমনিরহাট ও রংপুরের মতো অঞ্চলগুলো প্লাবিত হতে পারে। তবে চলতি মাসে দেশের কোথাও ব্যাপক বন্যা হওয়ার আশঙ্কা নেই।

পাউবোর বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানিয়েছে, আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত উত্তরাঞ্চলের তিস্তা, ধরলা ও দুধকুমার অববাহিকা এবং তৎসংলগ্ন উজানে ভারি বৃষ্টিপাত হতে পারে।

লালমনিরহাট : তিস্তা নদীর উৎপত্তিস্থল ভারতের সিকিমের পাহাড়ি অঞ্চলে কয়েক দিন ধরে টানা বর্ষণে সৃষ্ট ঢল আসছে বাংলাদেশে। এতে কয়েক দিন ধরে কখনো বাড়ছে, কখনো কমছে তিস্তার পানি। সর্বশেষ গতকাল সকালে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার তিস্তা ব্যারাজের ডালিয়া পয়েন্টে নদীটির পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। পরে বিপৎসীমার নিচে নামতে থাকে।

পাউবো জানায়, গতকাল সকাল ৬টায় ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি প্রবাহিত হয় বিপৎসীমার পাঁচ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে। তবে সকাল ৯টায় কমে বিপৎসীমার পাঁচ সেন্টিমিটার, দুপুর ১২টায় ১৭ সেন্টিমিটার, বিকেল ৩টায় ২৫ সেন্টিমিটার ও সন্ধ্যা ৬টায় বিপৎসীমার ৩০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়। এদিকে ধরলা নদীতেও পানি বাড়ছে।

কুড়িগ্রাম : জেলার ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তিস্তা, দুধকুমারসহ ১৬টি নদ-নদীর পানি দ্রুত বাড়ছে। তবে গতকাল এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সব পয়েন্টে বিপৎসীমার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছিল। অবশ্য নদ-নদীর চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলগুলোতে পানি ঢুকছে। ঘরবাড়িতে পানি না ঢুকলেও তলিয়ে গেছে পটোল, ঢেঁড়সসহ বিভিন্ন সবজিক্ষেত। কুড়িগ্রাম পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ-আল-মামুন জানান, জেলার সব নদ-নদীর পানি ২২ ও ২৩ জুন বিপৎসীমা অতিক্রম করতে পারে বলে আবহাওয়ার পূর্বাভাস রয়েছে। তবে আগামী ১০ দিনের মধ্যে বড় বন্যার আশঙ্কা নেই।

বৃষ্টিপাত বাড়তে পারে : এদিকে পাউবোর বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানিয়েছে, উজানে ও দেশের অভ্যন্তরে ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান নদ-নদীগুলোর পানির উচ্চতা বাড়ছে। আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত দেশের উজানে ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টিপাত হতে পারে। ফলে এ সময় এ অঞ্চলের নদ-নদীগুলোর (সুরমা, কুশিয়ারা, সারিগোয়াইন, ঝালুখালী, ভোগাই-কংস, সোমেশ্বরী, যাদুকাটা) পানি সমতল (পানির উচ্চতা) দ্রুত বাড়তে পারে। এতে সিলেট ও সুনামগঞ্জের কিছু পয়েন্টে বিপৎসীমা অতিক্রম করে সংলগ্ন নিম্নাঞ্চলে স্বল্পমেয়াদি বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে।

মঙ্গলবারের পূর্বাভাসে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, গতকালের তুলনায় আজ দেশে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ বাড়তে পারে। আজ রংপুর, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের বেশির ভাগ জায়গায় বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে এই চার বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে। এ ছাড়া রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এ সময় সারা দেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি