শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • প্রচ্ছদ » আলোকিত জনপথ » চট্টগ্রামের পর এবার ঢাকায় তথ্যমন্ত্রীকে নিয়ে মিথ্যা অপপ্রচারে সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলা



চট্টগ্রামের পর এবার ঢাকায় তথ্যমন্ত্রীকে নিয়ে মিথ্যা অপপ্রচারে সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলা


আলোকিত সময় :
23.06.2023

মুবিন বিন সোলাইমান, রাঙ্গুনিয়া (চট্টগ্রাম)প্রতিনিধি :

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এবং তাঁর পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কথিত নাগরিক টিভি নামের একটি ইউটিউব চ্যানেল ও এর ফেসবুক পেজ মিথ্যা তথ্যসংবলিত ভিডিও ক্লিপ আপলোড করায় জড়িত সাতজনের নামে এবার চট্টগ্রামের বাইরে ঢাকায় সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (২২ জুন) মামলাটি করেন রাঙ্গুনিয়া উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আয়েশা আক্তার। মামলার আসামিরা হলেন- নাজমুল সাকিব, এইচ এম কামাল, আজাদ শাহাদাত, সানি প্রধান, সাইফুল ইসলাম তালুকদার, খোন্দকার ইসলাম এবং হাজী হারুন রশিদ।
এ বিষয়ে মামলার বাদী আইনজীবী আয়েশা আক্তার বলেন, নাজমুল সাকিব নামের এক ব্যক্তি তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ মহোদয় ও তাঁর পরিবারকে নিয়ে ১৩ মিনিট ৩০ সেকেন্ডের একটি ভিডিও প্রচার করেন। এর মাধ্যমে মন্ত্রী মহোদয়ের সুনাম নষ্ট করার চেষ্টা করে সে। এই মিথ্যা বানোয়াট ও কুরুচিপূর্ণ ভিডিও প্রচারের বিষয়ে প্রতিকার পেতে সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলাটি করেছি।
তিনি আরও বলেন, আমি তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ মহোদয়ের নির্বাচনি এলাকার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এবং তিনি আমাদের এমপি ও অভিভাবক। তাই আমি আমার দায়িত্ববোধ থেকে মামলাটি করেছি, যেন আসামিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করেন আদালত।
উল্লেখ্য, এর আগে একই অভিযোগে গত রোববার (১৯ জুন) রাতে তথ্যমন্ত্রীর নির্বাচনী এলাকা রাঙ্গুনিয়া উপজেলা যুবলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আরিফুল ইসলাম বাদী হয়ে নগরীর চকবাজার থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করেন। সেই মামলায় নাজমুস সাকিবসহ সাত ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। একই আসামিদের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম সাইবার ট্রাইব্যুনালে আরেকটি মামলা হয়েছিল। গত মঙ্গলবার (২০ জুন) চট্টগ্রাম সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলাটি দায়ের করেন তথ্যমন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মোহাম্মদ এমরুল করিম রাশেদ।
তারা বলেন, প্রকৃতপক্ষে উল্লেখিত ছবি সম্বলিত ভিডিওটি সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন, ষড়যন্ত্রমূলক, মানহানিকর ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। প্রকৃত অর্থে এটা কোন টিভি চ্যানেল নয়, এটি একটি ইউটিউব চ্যানেল ও ফেসবুক পেইজ মাত্র। তাদের উল্লেখিত কর্মকান্ডের কারণে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক অনুমোদিত প্রকৃত নাগরিক টিভির কর্তৃপক্ষ আসামী কর্তৃক পরিচালিত ভুয়া ও অবৈধ নামধারী নাগরিক টিভির সাথে কোন সম্পর্ক নেই মর্মে সতর্কীকরন বিজ্ঞপ্তি ইতিমধ্যে প্রচার করেছে।


এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি